বসন্ত কোকিলের মধুময় কন্ঠের অজানা ঘটনা জানুন
ছবিঃ কোকিল
  • Post category:পাখি
  • Reading time:1 mins read

বসন্ত কোকিলের মধুময় কন্ঠের অজানা ঘটনা জানুন

বসন্ত কোকিলের মধুময় কন্ঠের জন্য সর্ব চেনা পাখি। কোকিল গায়োক পাখি হিসাবে পরিচিত। এর ইংরেজি নাম কুকো (Cuckoo)। এদের বৈজ্ঞানিক নাম কুকুলিডি (Cuculidae)। এরা পরনির্ভরশীল পাখি এরা কখনো বাসা বাধে না অন্য পাখিদের বাসায় ডিম পাড়ে। এই পৃথিবীতে প্রায় ১৩০ প্রজাতির কোকিল বসবাস করে, এদের মধ্যে বাংলাদেশে প্রায় ২০ প্রজাতির কোকিল দেখা যায়। কোকিল পরিবারে সাধারণ বা ইউরোপীয় কোকিল, রোডরানারস, কোয়েলস, মালকোহাস, কোয়াস, কোকালস এবং আনিস অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। কাউকেলস এবং আনিসকে মাঝেমধ্যে পৃথক পরিবার হিসাবে পৃথক করা হয়। এগুলি সাধারণত মাঝারি আকারের সরু পাখি।

কোকিল
ছবিঃ কোকিল

১। কমন কোকিলঃ

কমন কোকিল ইউরোপের বিখ্যাত পাখি। এটি ব্রুড পরজীবী হিসাবে সুপরিচিত: স্ত্রীলোকরা ছোট পাখির বাসাতে ডিম দেয় এবং তাদের অসহায় “হোস্ট” কেবলমাত্র কোকিল বাড়ে। ইউরোপ এবং এশিয়ার বেশিরভাগ অঞ্চলে একটি সাধারণ পরজীবি পাখি, এটি বসন্তের শেষের দিকে এবং গ্রীষ্মের শুরুতে নিয়মিতভাবে পশ্চিম আলাস্কান দ্বীপপুঞ্জে চলে আসে।

common cuckoo
ছবিঃ কমন কোকিল

 

২। হলুদ বর্ণের কোকিলঃ

হলুদ বর্ণের কোকিলগুলি বেশ বড়, লম্বা এবং পাতলা পাখি। এদের বিলটি প্রায় মাথার মতো লম্বা, ঘন এবং কিছুটা নিম্নচাপযুক্ত। তাদের একটি সমতল মাথা, পাতলা শরীর এবং খুব দীর্ঘ লেজ থাকে। এরা পাতলা কাঠের অঞ্চলে ভালভাবে লুকিয়ে থাকতে পারে। এরা সাধারণত স্থির বসে থাকে, এমনকি তাদের কাঁপড়া সাদা আন্ডার পার্টগুলি গোপন করার জন্য কাঁধে শিকার করে, কারণ তারা বড় বড় শুঁয়োপোকা শিকার করে।

Yellow-billed cuckoo বসন্ত কোকিল
ছবিঃ হলুদ বর্ণের কোকিল

 

৩। ইন্ডিয়ান কোকিলঃ

ভারতীয় কোকিল একটি মাঝারি আকারের কোকিল। এরা মসৃণ এবং সরু ধূসর এবং সাদা কোকিল। এদের ভারতীয় উপমহাদেশ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াতে পাওয়া যায়। এটি ভারত, বাংলাদেশ, ভুটান, নেপাল এবং শ্রীলঙ্কা থেকে পূর্ব ইন্দোনেশিয়া এবং উত্তরে চীন ও রাশিয়া পর্যন্ত রয়েছে। এটি একটি নির্জন এবং লাজুক পাখি, বন এবং খোলা কাঠের জমিতে দেখা যায়।

ইন্ডিয়ান কোকিল
ছবিঃ ইন্ডিয়ান কোকিল

 

৪। বৃহৎ বাজ-কোকিলঃ

বৃহৎ বাজ-কোকিল কুকুলিডি পরিবারে কোকিলের একটি প্রজাতি। এর প্রাকৃতিক আবাস হ’ল সমীকরণীয় বন এবং উষ্ণমঞ্চলীয় বা গ্রীষ্মমন্ডলীয় ম্যানগ্রোভ বন। এদের বাংলাদেশ, ভুটান, কম্বোডিয়া, চীন, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, লাওস, মালয়েশিয়া, মায়ানমার, নেপাল, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড এবং ভিয়েতনামে দেখা যায়। ক্রিসমাস দ্বীপে যোদ্ধা হিসাবে পাওয়া যায়। মালয় উপদ্বীপের বোকি, সুমাত্রা এবং বোর্নিও সাধারণত একটি পৃথক প্রজাতি হিসাবে বিবেচিত হয়, অন্ধকার বাজ-কোকিল।

Large hawk-cuckoo
ছবিঃ বৃহৎ বাজ-কোকিল

 

৫। আফ্রিকান পান্না কোকিলঃ

আফ্রিকান পান্না কোকিল একটি আকর্ষণীয় রঙিন পাখি যা উপ-সাহারান আফ্রিকায় ব্যাপকভাবে পাওয়া যায় এবং প্রাকৃতিকভাবে অ্যাঙ্গোলা, বটসওয়ানা, বুরুন্ডি, ক্যামেরুন, মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র, কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের আইভরিতে দেখা যায়। আরও উপকূল, নিরক্ষীয় গিনি, ইরিত্রিয়া, ইথিওপিয়া, গ্যাবন, গাম্বিয়া, ঘানা, গিনি, গিনি-বিসাউ, কেনিয়া, লাইবেরিয়া, মালাউই, মালি, মোজাম্বিক, নামিবিয়া, নাইজেরিয়া, রুয়ান্ডা, সাও টোমে ও প্রিন্সিপ, সেনেগাল, সিয়েরা লিওন, দক্ষিণ আফ্রিকা, সুদান, সোয়াজিল্যান্ড, তানজানিয়া, টোগো, উগান্ডা, জাম্বিয়া এবং জিম্বাবুয়ে দেখা মেলে।

African emerald cuckoo
ছবিঃ আফ্রিকান পান্না কোকিল

 

৬। প্যালিড কোকিলঃ

প্যালিড কোকিলকে তার ধূসর রঙের প্লামেজ দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছে। এটি একটি বিশাল, সরু কোকিল। এদের উড়ার সময় কিছুটা বাজ-জাতীয় চেহারা হয়। প্যালিড কোকিল বেশিরভাগ উন্মুক্ত বন এবং বনভূমি, পাশাপাশি সাফ এবং চাষযোগ্য খোলা দেশে বাস করে। এদের পুরো অস্ট্রেলিয়ায় দেখা যায়।

Pallid cuckoo
ছবিঃ প্যালিড কোকিল

 

৭। এশিয়ান পান্না কোকিলঃ

এশিয়ান পান্না কোকিল চকচকে সোনালি-রঙযুক্ত সবুজ রঙের চিটচিটে, নীচের বক্ষে সাদা বারের সাথে ভেন্ট এবং গা ডার্ক রঙের হয়ে থাকে। এরা প্রায় ১৮ সেন্টিমিটার (৭ইঞ্চি) পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়। এদের বাংলাদেশ, ভুটান, কম্বোডিয়া, চীন, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, লাওস, মালয়েশিয়া, মায়ানমার, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড এবং ভিয়েতনামে দেখা যায়। এর প্রাকৃতিক আবাসস্থল হ’ল উপ-গ্রীষ্মমন্ডলীয় বা গ্রীষ্মমন্ডলীয় আর্দ্র নিম্নভূমি বন এবং উপশাস্ত্রীয় বা গ্রীষ্মমন্ডলীয় আর্দ্র মনটেন বন।

Asian Emerald Cuckoo
ছবিঃ এশিয়ান পান্না কোকিল

 

৮। তিয়াল কোকিলঃ

তিয়াল কোকিল পরিবার কুকুলিডে উপ-পরিবারে নেওমর্ফিনিতে নিয়োট্রোপিকাল কোকিলের একটি প্রজাতি। এটি মধ্য ও দক্ষিণ আমেরিকার স্থানীয় যেখানে এটি নিম্নভূমি গ্রীষ্মমন্ডলীয় বনাঞ্চল। এটি একটি বৃহৎ পাখি যা মরিচা বাদামি রঙের সাথে সংক্ষিপ্ত শর্ট ক্রেস্টযুক্ত।

Pheasant cuckoo
ছবিঃ তিয়াল কোকিল

 

পরিবেশ সুন্দর করতে পশুপাখির ভুমিকা অপরিসীম। আমাদের সাথেই থাকুন পশুপাখি নিয়ে অনেক ভাল শিক্ষামূলক তথ্য জানতে পারবেন।

Facebook Comments

YappoBD

YappoBD-হলো poshupakhi.com এর একমাত্র স্বত্তাধীকারি। এই ওয়েবসাইটের সকল প্রকার কন্টেন্ট ইয়াপ্পোবিডি কর্তৃপক্ষ দ্বারা লিখিত, পরিমার্জিত এবং এটি ইয়াপ্পোবিডি এর অঙ্গসংস্থান।