You are currently viewing স্বপ্নে সাপ দেখার কারন কি হতে পারে
  • Post category:সাপ
  • Reading time:1 mins read

স্বপ্নে সাপ দেখার কারন কি হতে পারে

স্বপ্নে সাপ দেখার কারন কি হতে পারে বলে আপনার মনে হয়? প্রানীজগতে মেরুদন্ডী এবং অমেরুদন্ডী প্রানী গুলো সবচেয়ে বেশি পরিমানে আছে। প্রকৃত অর্থে সম্পূর্ন প্রানীজগত মেরুদন্ডী এবং অমেরুদন্ডী প্রানীদের মিলেই গঠিত। তবে গবেষনায় দেখা গিয়েছে মেরুদন্ডী প্রানী এর চেয়ে অমেরুদন্ডী প্রানীর সংখ্যা বেশি। তেমনি ভাবে মেরুদন্ডী প্রানীদের মধ্যে সাপ সরীসৃপ প্রানী হিসেবে পরিচিত। সাপ হচ্ছে হাত পা বিহীন মেরুদণ্ডী প্রানী। সাপের ইংরেজি নাম Snake শব্দটি এসেছে প্রাচীন ইংরেজি Sanca থেকে।

pythons snake
ছবিঃ বার্মিজ পাইথন সাপ

সংস্কৃত শব্দ সর্প থেকে সাপ শব্দের উতপত্তি। এদের দেহ মাথা থেকে লেজ পর্যন্ত আঁইশ দ্বারা ঢাকা থাকে। শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ প্রত্যাঙ্গ তেমন নেই। তবে এদের গতির সাথে যে কেউ পাল্লা দিয়ে পারে না। এজন্য কোন মানুষ সাপ দেখে ভয় পেলে যদি দৌড় দেয় তাও মানুষের চেয়ে সাপ বেশি দ্রুত যাওয়াই মানুষকে ধরে ফেলে। এমন পরিস্থিতিতে পড়লে আমাদের জিগজ্যাগ করে এগুনো উচিত।

Indian Cobra Snake
ছবিঃ সাপের দ্বিপ

সহজ কথায় সাপকে বুঝতে দেওয়া যাবে না আপনার নেক্সট মুভ কি হবে। সাপ কামড় দিলে প্রাথমিক চিকিৎসা অবশ্যই নিতে হবে।অন্য কোন অঙ্গ প্রত্যাঙ্গ না থাকলেও  অজগর সাপ এত বেশি শক্তিশালী যে কোন আস্ত মানুষকে একবারেই গিলে ফেলতে পারে। এদের শক্তি বেশি হওয়াই মানুষের হাড়গোড় একবারে দুমড়ে মুচড়ে ফেলতে পারে। অ্যানাকোন্ডা (Anaconda ) মুভি দেখলে সাপ কত বড় হয় তা জানা যায়। সেটা কম্পিটারাইজড হলেও এত বড় সাপ বাস্তবে আছে।

বাসস্থানঃ

সাপ মাটিতে, মাটির নিচে গর্তে বা সুড়ঙ্গে, গাছে ও পানিতে থাকতে পারে। সাঁতার কাটতে পারে না এমন সাপ খুঁজে লাভ নাই। কারন এমন সাপ নাই । কালনাগিনী সাপ গাছের উঁচু ডাল থেকে নিচের ডালে গড়িয়ে গড়িয়ে নামে। এই সাপ গুলো অনেক ভয়ংকর হয় এবং বিষাক্ত প্রকৃতির হয়। এসব সাপের কেউ ক্ষতি করতে গেলে ছোবল দেয়। সাপ পৃথিবীতে অনেক প্রজাতির রয়েছে সারা বিশ্বে সাপের বিস্তার চোখে পরে অ্যান্টার্কটিকা ছাড়া সকল মহাদেশেই সাপের উপস্থিতি দেখা যায়। এখন পর্যন্ত যতোদূর জানা যায়, সাপের সর্বমোট  ২,৯০০টিরও বেশি প্রজাতি রয়েছে। এদের আকার খুব ছোট, ১০ সে.মি. থেকে শুরু করে সর্বচ্চো ২৫ ফুট বা ৭.৬ মিটার পর্যন্ত হয়ে থাকে।

স্বপ্নে সাপ দেখার কারন কি

বাহিরের বৈশিষ্ট্যঃ

সাপ দেখতে যথেষ্ট বড় লম্বা প্রকৃতির হয়। মানুষের চোখের পাতা থাকলেও সাপের চোখের কোন পাতা নেই। মানুষ পানির নিচে চোখ খুলে সাঁতার কাটলে চোখে সমস্যা দেখা দেয় কিন্তু সাপ এবং মাছ পানির নিচে খুব ভালভাবেই চলতে পারে। সাপের মুখে চোয়ালগুলি যথেষ্ট পরিমানে প্রসারিত করতে পারে এজন্য বেশি জায়গা নিয়ে কামড় দিতে পারে। সাপের বিষাক্ত কামড়ে মানুষের মৃত্যুও হতে পারে এজন্য এমন প্রতিবেদন প্রথম আলো, নয়াদিগন্ত, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ইত্তেফাক, ইনকিলাব যুগান্তর সহ আরও উল্লেখযোগ্য সকল পত্রিকায় প্রতিবেদন হয়। তবে সাপ কামড় দিলে তৎক্ষনাৎ প্রাথমিক চিকিৎসা নিতে হবে। এতে করে বড় ধরনের ঝুঁকি কমে যায়। সাপের বিষের যথেষ্ট মুল্য রয়েছে।

Vipers Snake
ছবিঃ সাপের চোয়াল

সাপের দাঁতঃ

সাপ বিষদাঁতের মাধ্যমে কামড় দিয়ে থাকে। এই বিষদাঁতের মাধ্যমে বিষ শরীরের মধ্যে প্রবেশ করে। বিষ দাঁতের উপর ভিত্তি করে সাপদের দুই  ভাবে ভাগ করা যায়। বিষযুক্ত এবং বিষহীন সাপ। বিষহীন সাপগুলো মানুষের জন্য ক্ষতির কারন না এবং ভয়েরও কারন না। এরা ততক্ষন পর্যন্ত ছোবল দেয় না যতক্ষণ পর্যন্ত এদের কেউ আক্রমন করে। কিছু ক্ষেত্রে বিষাক্ত সাপ গুলোর বিষদাঁত ভেঙ্গে দেওয়া হয়। সাপদের বিষদাঁত এবং বিষাক্ত সাপ সম্পর্কে জানার জন্য ভিজিট করুন 

বিষাক্ত সাপ
ছবিঃ হলুদ সাপ

স্বপ্নে সাপ দেখার কারন কিঃ

সাধারনত আমরা সাপ দেখে ভয় পাই। রাতে ঘুমানোর আগে যেসব চিন্তা করে ঘুম আসলে আমরা তাই স্বপ্ন দেখি। সাপ স্বপ্নে দেখলে ভয় লাগা স্বাভাবিক। স্বপ্নে সাপ দেখার কারণ কি হতে পারে? এমন প্রশ্ন মনে আসা স্বাভাবিক। স্বপ্নে সাপ দেখার অর্থ হচ্ছে আপনার জীবন বদলে যেতে চলছে। অবস্থার পরিবর্তন হতে চলছে। এছাড়াও স্বপ্নে সাপ দেখার অর্থ বিভিন্ন মতবাদ অনুসারে বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে।

Green Anaconda
ছবিঃ অ্যানাকোন্ডা সাপ

গড়ে পৃথিবীতে সাপের ৩,০০০ প্রজাতি পাওয়া যায়, যার মধ্যে মাত্র ১৫ শতাংশের দংশন বা সাপের কামড় মানুষের জন্য বিপজ্জনক। তবে সাপ সাধারনত মানুষ শিকার করেন না এবং সাপ কে উত্তেজিত না করলে বা আঘাত না করলে সাপ মানুষ কে এড়িয়ে চলে। যেগুলো বিষধর সেগুলোও আত্মরক্ষার চেয়ে শিকার করার সময় বিভিন্ন প্রানীকে ঘায়েল করতেই বিষের ব্যবহার বেশি হয়। কিছু বিষধর সাপের বিষ মানুষের মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুকি বা মৃত্যুর কারণ ঘটায়।অনেক সময় সাপের বিষ মানুষের উপকারে আসে।যা বিভিন্ন রোগের ঔষধ হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

খোলস পরিবর্তনঃ

 সাপ বছরে অনেক বার এদের খোলস পরিবর্তন করে। এদের কশেরুকার (মেরুদণ্ডের অংশ বিশেষ) সংখ্যায়  সর্বাধিক ১০০ থেকে ৪০০ হয়ে থাকে। সাপের কোন বাহিরের কান নাই তাই এরা অন্তকর্ণর মাধ্যমে গ্রহন করতে পারে। এদের চোয়ালের দুই পাশে হাড় থাকায় এদের খাবার সহজে খাইতে পারে। বর্ষা কালে সাপের প্রভাব বেশি দেখা যায়।অ্যান্টার্কটিকা ব্যতীত প্রতিটি মহাদেশে জীবন্ত সাপ পাওয়া যায়, এবং বেশিরভাগ ছোট স্থল গুলির মধ্যে কয়েকটি বড় দ্বীপ যেমন আয়ারল্যান্ড এবং নিউজিল্যান্ড এবং আটলান্টিক এবং মধ্য প্রশান্ত মহাসাগরের অনেকগুলি ছোট দ্বীপ রয়েছে, সমুদ্রের সাপগুলি সমগ্র ভারত এবং প্রশান্ত মহাসাগরগুলিতে বিস্তৃত আছে। নতুন বংশধর কে বিস্তার করার জন্য বেশির ভাগ সাপ ডিম দেয় তবে সমূদ্রিক সাপ গুলো বাচ্ছা জন্ম দেয়।

স্বপ্নে সাপ দেখার কারন কি
ছবিঃ গাছে সাপ

পরিশেষে, সাপদের সম্পর্কে আরও তথ্য রয়েছে। স্বপ্নে সাপ দেখার কারন কি হতে পারে বলে আপনার কি মনে হয়? কমেণ্টে জানান। এমন বিচিত্র রকমের তথ্য জানার জন্য আমাদের সাথেই থাকুন এবং আপনাদের মূল্যবান মন্তব্য আমাদের সাথে শেয়ার করুন। লেখাটি পড়ে কেমন লাগল তা কমেন্ট বক্সের মাধ্যমে কমেন্ট করে জানাবেন।

Facebook Comments

YappoBD

YappoBD-হলো poshupakhi.com এর একমাত্র স্বত্তাধীকারি। এই ওয়েবসাইটের সকল প্রকার কন্টেন্ট ইয়াপ্পোবিডি কর্তৃপক্ষ দ্বারা লিখিত, পরিমার্জিত এবং এটি ইয়াপ্পোবিডি এর অঙ্গসংস্থান।